প্রকাশিত: দুপুর ১২ টা ৩৭ মিনিট, ১৫ জুন ২০১৭, বৃহস্পতিবার | আপডেট: দুপুর ১২ টা ৩৭ মিনিট, ১৫ জুন ২০১৭, বৃহস্পতিবার
ধর্ম ডেস্ক :
আরবি ‘কাফফারা’ শব্দটির অর্থ ক্ষতিপূরণ। মাহে রমজানের ফরজ রোজা রাখার পরে কোনো কারণ ছাড়া ইচ্ছাকৃতভাবে রোজা ভেঙে ফেললে কাজা এবং কাফফারা উভয়টাই আদায় করা ওয়াজিব। হজরত আবু হুরায়রা (রা.) একটি হাদিস বর্ণনা করেছেন। তিনি বলেন, একবার এক লোক রমজান মাসের রোজা ভেঙে ফেলল। রাসুলুল্লাহ (সা.) তাকে দাস মুক্ত করার মাধ্যমে অথবা লাগাতার ষাট দিন রোজা রাখার মাধ্যমে অথবা ষাটজন মিসকিনকে খাবার খাওয়ানোর মাধ্যমে কাফফারা আদায় করার নির্দেশ দিলেন।(মুআত্তা ইমাম মালেক, হাদীস: ১০৪৩) ইসলামী শরিয়তে কাফফারা তিন পদ্ধতিতে আদায়ের বিধান দেওয়া হয়েছে। (১) দাস মুক্ত করা (২)লাগাতার ষাট দিন রোজা রাখা (৩) ও মিসকিনকে খাদ্য দানের মাধ্যমে।

বর্তমানে যেহেতু পৃথিবীতে দাসপ্রথা আর অবশিষ্ট নাই সুতরাং দাস মুক্ত করে কাফফারা আদায় করার সুযোগও আর নাই। যাদের রোজা রাখার সক্ষমতা আছে তাদের রোজার মাধ্যমেই রোজার কাফফারা আদায় করতে হবে। আর যাদের রোজা রাখার মতো শারীরিক সক্ষমতা নাই এবং ভবিষ্যতেও তেমন সক্ষমতা ফিরে পাওয়ার আশা নাই শুধু তাদের জন্য মিসকিনকে খাদ্য দানের মাধ্যমে কাফফারা আদায়ের অনুমতি আছে।

কাফফারার রোজা রাখার পদ্ধতি
লাগাতার ষাট দিন রোজা রাখতে হবে। এই ষাট দিনের মাঝে যদি এক দিনও কোনো কারণে ছুটে যায় তাহলে কাফফারা বাতিল হয়ে যাবে। পুনরায় প্রথম থেকে রোজা রাখতে হবে। কাফফারা রোজা এমনভাবে রাখতে হবে যেন নিষিদ্ধ সময় ষাট দিনের মধ্যে এসে না যায়। যেমন দুই ঈদের দিন ও ঈদুল আজহার পরের তিনদিন এবং নারীদের সন্তান প্রসবের সময়। কাজা ও কাফফারা উভয় রোজার নিয়ত সুবহে সাদিক এর পূর্বে করতে হবে।

খাদ্য দানের মাধ্যমে কাফফারা আদায়ের পদ্ধতি
পূর্ণ খোরাক খেতে পারে এমন ষাট জন মিসকিনকে দুবেলা পরিতৃপ্ত করে খাওয়াতে হবে অথবা সাদাকায়ে ফিতরএ যে পরিমাণ গম বা আটা দেওয়া হয়ে উক্ত পরিমাণ প্রত্যেক মিসকিনকে দিতে হবে। একজন মিসকিনকে দুবেলা করে ষাট দিন খাওয়ালেও হবে। খাবার বা গমের মূল্য দিলেও আদায় হয়ে যাবে। ষাট দিনের খাবারের মূল্য অথবা গমের মূল্য একবারে একজনকে দিয়ে দিলে কাফফারা আদায় হবে না। তাতে একদিনেরটা আদায় হবে ঊনষাট দিনের বাকি থেকে যাবে। ষাট দিন খাওয়ানো বা মূল্য দেওয়ার মাঝে দু-একদিন বিরতি পড়লে অসুবিধা নাই। একই রমজানের একাধিক রোজা ভেঙে ফেললে একটাই কাফফারা ওয়াজিব হবে। তবে যে কয়দিনের রোজা ভঙ্গ করা হয়েছে উক্ত দিনগুলির রোজা কাজা করতে হবে। যেমন কেউ যদি এক রমজানের পাঁচদিন রোজা ভঙ্গ করে তাহলে তাকে পাঁচদিনের কাজা ও কাফফারা মিলিয়ে মোট পঁয়ষট্টিটা রোজা রাখতে হবে। মহান আল্লাহ আমাদের সবার রোজা কবুল করুন!



বিএমটিআই নিউজ / এন এস

আপনার মন্তব্য
এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
১৮ জানুয়ারি ২০১৮
বিত্রমটি আই নিউজ ডেস্ক
‘মানুষ অভ্যাসের দাস’- প্রবাদ-প্রবচনটি আমরা বাংলা ব্যাকরণে পড়েছি। কিন্তু অভ্যাস যখন উল্টো মানুষের কর্মচারী হয়, তখন কতো অবাক লাগে তাই বিস্তারিত
০২ জানুয়ারি ২০১৮
বিত্রমটি আই নিউজ ডেস্ক
ভালো আছি! চশমাটা এই নিয়ে তিনবার ভাঙলো,তাও ভালো ফ্রেম, তাপ্তি দেওয়া যায়,যদি কাঁচ হতো ! শীতে একটা সোয়েটারের খুব দরকার,না থাক! এখন বিস্তারিত
৩০ ডিসেম্বর ২০১৭
বিত্রমটি আই নিউজ ডেস্ক
উৎসবমুখর পরিবেশে ১৯ বছর পর জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত হচ্ছে সিনেট রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েট প্রতিনিধি নির্বাচন-২০১৭। মোট ২টি কেন্দ্রে ১১৪টি বুথে সকাল বিস্তারিত
© স্বত্ব বিএমটিআইনিউজ ২০১৫ - ২০১৭
সম্পাদক :
মিঞা মুজিবুর রহমান
নির্বাহী সম্পাদক : শাহআলম শুভ
৩৭৩,দিলু রোড (তৃতীয় তলা)মগবাজার, ঢাকা-১২১৭
ফোন: ০২৯৩৪৯৩৭৩, ০১৯৩৫ ২২৬০৯৮
ইমেইল:bmtinews@gamil.com