মমিন রানা: গাজীপুরের গৃহবধু নুসরাত জাহান টুম্পা (৩০) হত্যার প্রদিবাদে ও বিচাররে দাবিতে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসী। এসময় এলাকাবাসী অভিযুক্ত নিহত টুম্বার স্বামী গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ২নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সোলায়মান মিয়ার ফাঁসির দাবি করেছেন।



বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১২ টার দিকে গাজীপুর মহানগরীর কোনাবাড়ী বাসস্ট্যান্ড ঢাকা-টাঙ্গাইল মহসড়কে বিক্ষোভ ও মানববন্ধনটি অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে অংশ নেয় বিভিন্ন স্কুল কলেজের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, চাকরীজীবি, ব্যবসায়ীসহ সকল পেশার সহ্রাধিক মানুষ। প্রায় দেড় ঘন্টাব্যাপি এ বিক্ষোভ ও মানবন্ধন চলে।



এসময় নিহত নুসরাত জাহান টুম্পার পিতা নজরুল ইসলাম ও মা সেলিনা নজরুল প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিচার চান। কান্নাজড়িত কন্ঠে সেলিনা নজরুল তার মেয়ে হত্যার বিচার চেয়ে প্রধানমন্ত্রীকে বলেন, আপনিতো প্রধানমন্ত্রী আপনিতো সবার মন্ত্রী আপনি আমার মেয়ে হত্যার বিচার করুন। এসময় টুম্পার ছেলে নির্জন ইসলাম নাফি (৮) সুষ্ঠ বিচারের দাবিতে প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করে। তারা বলেন, তাদের মেয়ে নুসরাত জাহান টুম্পাকে অনেক নির্যাতক করে হত্যা করা হয়েছে। এ ধরণের নির্মম ঘটনা এদেশে যেন আর না ঘটে। হত্যাকারী সোলায়মান মিয়াকে দ্রুত গ্রেফতার করে ফাঁসির দাবি করেন তারা।



এসময় বক্তব্য রাখেন- গাজীপুর মহানগরীর কাউন্সিলর শফিকুল আমিন তপন, আজাহারুল ইসলাম মোল্লা, মো. খলিলুর রহমান এমএ,আব্বাসউদ্দিন থোকন, আ.লীগ নেতা শেখ মো. আক্কাস আলী, মো. মোঃ সোলায়মান মিয়া, ্এ্যাড, মোঃ জাকির হোসেন, বিএনপি নেতা মো. ইদ্রিস আলী সরকার, সামছুর ইসলাম, বিনু বারেক প্রমূখ।



গাজীপুর মহানগরীর ২নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সোলায়মান মিয়া তার স্ত্রী ও একমাত্র সন্তান নিয়ে ঢাকা উত্তরার ৭নং সেক্টরের ৪ নম্বর রোডের ৪ নম্বর বাসায় কয়েক বছর ধরে বসবাস করতেন।

গত রোববার বিকালে সোলায়মান, টুম্পা, টুম্পার ভাই সাইফ ও তার স্ত্রীসহ বসুন্ধরা এলাকায় বেড়াতে যান। গাড়িতে স্বামী সোলায়মান মিয়ার মোবাইলে অন্য একটি মেয়ের ছবি দেখতে পেয়ে স্বামীর সঙ্গে টুম্পার ঝগড়া ও কথাকাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে রাতে সোলায়মান ও টুম্পাকে তাদের ঢাকার উত্তরার বাসায় নামিয়ে ভাই সাইদ তার স্ত্রীকে নিয়ে চলে যায়। ওই সময় তাদের সন্তান নাফি (৮) উত্তরাতে তার নানা নজরুল ইসলামের বাসায় ছিল। পরে রাতে কোন এক সময় টুম্পাকে নির্যাতন করে হত্যার পর সোলায়মান বাসার বাইরে থেকে তালা লাগিয়ে পালিয়ে যায়। সকালে গৃহ পরিচারিকা বাসায় দরজা বন্ধ দেখতে পেয়ে টুম্পার মাকে মোবাইলে জানায়। খবর পেয়ে তারা ওই বাসায় এসে জানালা ভেঙ্গে ঘরে প্রবেশ করে খাটের উপর টুম্পাকে পড়ে থাকতে দেখে। পরে তাকে উদ্ধার করে উত্তরার ক্রিসেন্ট হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক টুম্পাকে মৃত ঘোষণা করেন।

গত ১২ বছর আগে কাশিমপুরের ভবানীপুর এলাকার হাজী নুরুল ইসলামের ছেলে সোলায়মান মিয়ার সঙ্গে তার মেয়ে টুম্পার বিয়ে হয়। বিয়ের ৫ বছর পর থেকে বিভিন্ন সময় টুম্পাকে নির্যাতন করতো সোলায়মান। সোলায়মান মাদকের নেশা ও নারী সংক্রান্ত ঘটনায় স্বামী স্ত্রীর মধ্যে মাঝে মধ্যে ঝগড়া হতো।



 

আপনার মন্তব্য
এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
৩০ জানুয়ারি ২০১৮
বিত্রমটি আই নিউজ ডেস্ক
অতি উৎসাহী অনুগামী কী কী করতে পারে? তা সিনেমার পর্দায় একাধিকবার উঠে এসেছে। তারকাদের জীবনেও এ ঘটনা নতুন নয়। ভালবাসার এই বিস্তারিত
৩০ জানুয়ারি ২০১৮
বিত্রমটি আই নিউজ ডেস্ক
নড়াইলের কালিয়া উপজেলার সালামাবাদ ইউনিয়নের ভাউড়িরচর গ্রামের জামাল হোসেনের ছাগলের খামারে আগুন লেগে প্রায় দেড়শত ছাগলের মৃত্যু হয়েছে। রবিবার (২৮ জানুয়ারী) বিস্তারিত
৩০ জানুয়ারি ২০১৮
বিত্রমটি আই নিউজ ডেস্ক
তারুণ্যদীপ্ত নাট্যসংগঠন "নাট্যদল" টি.এস.সি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতি বছর-ই সংস্কৃতিতে বিশেষ অবদান স্বরুপ সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্বদের সন্মাননা প্রদান করে থাকেl এরই ধারাবাহিকতায় বিস্তারিত
© স্বত্ব বিএমটিআইনিউজ ২০১৫ - ২০১৭
সম্পাদক :
মিঞা মুজিবুর রহমান
নির্বাহী সম্পাদক : শাহআলম শুভ
৩৭৩,দিলু রোড (তৃতীয় তলা)মগবাজার, ঢাকা-১২১৭
ফোন: ০২৯৩৪৯৩৭৩, ০১৯৩৫ ২২৬০৯৮
ইমেইল:bmtinews@gamil.com