অবৈধভাবে মালয়েশিয়া অনুপ্রবেশের পথে ইন্দোনেশিয়া কারাগারে নবীগঞ্জের ৩ যুবক আটক থাকার চাঞ্চল্যকর খবর পাওয়া গেছে। আটককৃত যুবকদের পরিবার তাদের সন্তানরা মালয়েশিয়া কখন পৌছবে, রোজি করে টাকা পয়সা পাটাবে এ প্রত্যাশায় যখন পথ চেয়ে আছে, ঠিক তখনই নবীগঞ্জ থানা পুলিশের মাধ্যমে জানতে পারেন কারাগারে আটক থাকার খবর।



সন্তানদের এমন র্দূগতির খবর পেয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন স্বজনরা। দালালদের খপ্পড়ে পড়ে জীবনের শেষ স্বম্ভল বিক্রি করে তাদের মালয়েশিয়া পাঠানো হয়েছিল। বুক ভরা আশা ছিল তারা বিদেশ গিয়ে আয়, রুজি করে গরীব মা-বাবা ও ভাই-বোনদের মূখে আহার যোগাবে। সে আশায় এখন বালি ধরেছে।



সুত্রে জানাযায়, নবীগঞ্জ উপজেলার সদর ইউনিয়নের আব্দুল করিমের ছেলে আবু বক্কর (১৬)কে ২ লাখ ৮৫ হাজার টাকার বিনিময়ে স্থানীয় দালাল সাকুয়া গ্রামের কলমদর আলীর ছেলে জমাত আলীর মাধ্যমে মালয়েশিয়া পাঠানো হয়। কথা থাকে সেখানে পৌছে ভাল চাকুরী পাওয়ার পর অবশিষ্ট টাকা দেয়ার। সে র্শত মোতাবেক ১ লাখ ৮৫ হাজার টাকা দালাল জমাত আলীর হাতে দিয়ে মালয়েশিয়া নৌপথে ফাড়িঁ দেয় আবু বক্কর। একই পথে পাড়ি দেয় উপজেলার কুর্শি ইউনিয়নের সমরগাঁও গ্রামের নজির মিয়ার ছেলে নুরুল ইসলাম(৩৩) এবং তার ভগ্নিপতি মোতাজিলপুর গ্রামের মৃত ইয়াছিন উল্লার ছেলে আব্দুল কাইয়ুম (৪১)। তারা স্থানীয় দালাল উপজেলার সদর ইউনিয়নের চৌশতপুর গ্রামের মৃত আকল উল্লার ছেলে আব্দুল হামিদ এর মাধ্যমে মালয়েশিয়া পথে রওয়ানা দিয়েছিল। শ্যালক ও ভগ্নিপতি দু’জনে ৭ লাখ ৭০ হাজার টাকা চুক্তি করে বেশীর ভাগ টাকাই দালালের কাছে দিয়ে পাড়ি জমান। তাদের পরিবারের লোকজন জানান, উক্ত দালালরা নানা প্রলোভনে তাদের সন্তানদের মালয়েশিয়া পাঠানোর লোভনীয় প্রস্তাব দিয়ে টাকা গুলো নেয়। মালয়েশিয়া পৌছানো এবং ভাল চাকুরী দেয়ার দায়িত্ব তাদের। অন্যতায় লোকসহ টাকা ফেরৎ দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলো দালালরা।



অপর একটি সুত্রে জানায়, ওই দালালদের সিন্ডিকেটের সাথে চট্রগ্রামের কতিপয় দালালরা জড়িত। এবং ওই ৩ যুবক ছাড়াও নবীগঞ্জের বিভিন্ন এলাকার অসংখ্য যুবক রয়েছে যারা অবৈধ অনুপ্রবেশের জন্য মালয়েশিয়ায় স্থানীয় দালালদের মাধ্যমে রওয়ানা দিয়েছিল। প্রায় ২/৩ মাস যাবৎ তাদের কোন হদিস পাওয়া যাচ্ছে না।



অথচ দালালদের পরিবার থেকে অবশিষ্ট টাকার জন্য চাপও দেয়া হচ্ছে। এদিকে নবীগঞ্জ উপজেলার কানাইপুর গ্রামের আবু বক্কর, সমরগাঁও গ্রামের নুরুল ইসলাম ও তার ভগ্নিপতি আব্দুল কাইয়ুম অবৈধ অনুপ্রবেশের দায়ে ইন্দোনেশিয়া কারাগারে আটক রেখে সে দেশের সরকার বাংলাদেশ সরকারকে পত্র দিয়ে অবহিত করে এবং আটককৃতরা বাংলাদেশের নাগরিক কি না যাচাইপুর্বক প্রতিবেদন প্রেরনের অনুরুধ করেন।



এর প্রেক্ষিতে সংশ্লিষ্ট দপ্তর থেকে একটি পত্র নবীগঞ্জ থানায় প্রেরন করলে এসআই আব্দুল করিম ঘটনাটি তদন্ত করে তাদের নাম ঠিকানা যাচাইপুর্বক একটি প্রতিবেদন প্রেরন করেছেন।



এ ব্যাপারে এসআই আব্দুল করিম জানান, আটককৃতদের পরিবার স্থানীয় দালালের প্রলোভনে পড়ে ভিটেবাড়ি বিক্রি করে তাদের সন্তানদের মালয়েশিয়া প্রেরন করেছিল বলে জানিয়েছেন।



এদিকে আটককৃতদের পরিবার জানান, তাদের সন্তানদের ইন্দোনেশিয়া কারাগারে আটকের খবর পেয়ে সংশ্লিষ্ট দালালদের দ্বারে দ্বারে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। দালালরা নানা টালবাহানা শুরু করেছে। নবীগঞ্জ বাসী লোভনীয় অফার দিয়ে স্থানীয় দালালদের খপ্পড়ে পড়ে সর্বশান্ত হওয়া লোকদের বাচাঁতে ওই সব দালালদের আইনের আওতায় এনে শাস্তি প্রদানের দাবী জানান।


আপনার মন্তব্য
এই বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
৩০ জানুয়ারি ২০১৮
বিত্রমটি আই নিউজ ডেস্ক
অতি উৎসাহী অনুগামী কী কী করতে পারে? তা সিনেমার পর্দায় একাধিকবার উঠে এসেছে। তারকাদের জীবনেও এ ঘটনা নতুন নয়। ভালবাসার এই বিস্তারিত
৩০ জানুয়ারি ২০১৮
বিত্রমটি আই নিউজ ডেস্ক
নড়াইলের কালিয়া উপজেলার সালামাবাদ ইউনিয়নের ভাউড়িরচর গ্রামের জামাল হোসেনের ছাগলের খামারে আগুন লেগে প্রায় দেড়শত ছাগলের মৃত্যু হয়েছে। রবিবার (২৮ জানুয়ারী) বিস্তারিত
৩০ জানুয়ারি ২০১৮
বিত্রমটি আই নিউজ ডেস্ক
তারুণ্যদীপ্ত নাট্যসংগঠন "নাট্যদল" টি.এস.সি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতি বছর-ই সংস্কৃতিতে বিশেষ অবদান স্বরুপ সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্বদের সন্মাননা প্রদান করে থাকেl এরই ধারাবাহিকতায় বিস্তারিত
© স্বত্ব বিএমটিআইনিউজ ২০১৫ - ২০১৭
সম্পাদক :
মিঞা মুজিবুর রহমান
নির্বাহী সম্পাদক : শাহআলম শুভ
৩৭৩,দিলু রোড (তৃতীয় তলা)মগবাজার, ঢাকা-১২১৭
ফোন: ০২৯৩৪৯৩৭৩, ০১৯৩৫ ২২৬০৯৮
ইমেইল:bmtinews@gamil.com